Why Chabahar Port is important to India

Advertisements

Why Chabahar port is important to India – Why Chabahar Port is a win win for India

Detailed Analysis at Sahajpath Classes 

স্থলভাগ দিয়ে ঘেরা দেশ আফগানিস্তান সম্প্রতি সরকারিভাবে ইরানের চাবাহার বন্দর দিয়ে ভারতে বিভিন্ন দ্রব্য রপ্তানি শুরু করলো।

  • ড্রাইড ফ্রুট, textile, carpet এবং নানা ধরনের খনিজ পদার্থ আফগানিস্তান থেকে চাবাহার বন্দর দিয়ে সমুদ্রপথে ভারতে রপ্তানি জন্য পাঠানো হয়েছে।
  • ইরান এর জন্য আফগনিস্তানকে সহযোগিতা প্রদান করেছে স্থলভাগ থেকে বন্দর পর্যন্ত স্থলরুট ব্যবহার করতে দিয়ে।
  • উল্লেখ করা যায়, এই রুট তৈরি করতে ভারত ইরানকে আর্থিক সহযোগিতা প্রদান করেছে; ইরান, আফগানিস্তান এবং মধ্য এশিয়াতে ভারতের ব্যবসা আরো উন্নত করতে এবং যাতে পাকিস্তানের উপর কোনো রকম ভরসা না করতে হয় তার জন্য।

উল্লেখ্য ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে ভারত, আফগানিস্তান, ইরান এই তিন দেশ তাদের মধ্যে বাণিজ্যিক যোগাযোগ এবং Chabahar port ও ট্রানজিট করিডোরের রুটে সম্মতি প্রদান করেছে (Trilateral Transit Agreement)। এই সংক্রান্ত ত্রিপাক্ষিক চুক্তির প্রথম মিটিং অনুষ্ঠিত হয়েছিল ইরানে।

এবার জেনে নেওয়া যাক, Chabahar port এর ভৌগলিক অবস্থান –

  • Iran’s Chabahar port (ShahidBeheshti Port) – এই পোর্ট টি ইরানের দক্ষিণ পূর্ব দিকে পাকিস্তান সীমানার কাছে চাবাহারের মাকরান উপকূলে অবস্থিত।
  • এটি ইরানের একমাত্র সামুদ্রিক বন্দর যা Gulf of Oman (ওমান উপসাগর) এ অবস্থিত।
  • এই বন্দর টি যৌথভাবে ইরান, ভারত এবং আফগানিস্থান এই তিনটি দেশ তৈরী ও বিকাশ সাধন করেছে। এই বন্দরটি তাই তিন দেশের বাণিজ্যের দিক দিয়ে খুব গুরুত্বপূর্ণ।

প্রথমে মানচিত্রে ইরান, আফগানিস্থান, পাকিস্তান এবং ভারত এর অবস্থান আমরা দেখে নেবো।

C:\Users\user\Desktop\Chabahar Port.jpg ইরানের চাবাহার পোর্ট (Chabahar port) ভারতের কাছে কৌশলগত এবং অর্থনৈতিক দিক দিয়ে খুব গুরুত্বপূর্ণ।

রুট ৬০৬: দেলারাম – জরঞ্জ হাইওয়ে

ভারত ইরানের সীমান্তে অবস্থিত আফগানিস্তানের জরঞ্জ থেকে দেলারাম পর্যন্ত ২১৭ কিমি লম্বা দুই রাস্তা বিশিষ্ট হাইওয়েটি তৈরি করেছে। 

  • ভারত 2009 সালে আফগানিস্থান এ Zaranj-Delaram হাইওয়ে তৈরি করেছিল।
  • Zaranj-Delaram হাইওয়ে নিন্মলিখিত চারটি শহরের সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপন করেছে – হেরাত, কান্দাহার, কাবুল এবং মাজার – এ শরিফ (Herat, Kandahar, Kabul, and Mazar-e-Sharif)

চাবাহার – জরঞ্জ – দেলারাম – হাজিগাক রেলওয়ে

  • এছাড়াও ইরানের চাবাহার বন্দর থেকে আফগানিস্তানের বামিয়ান প্রভিন্স পর্যন্ত ৯০০ কিমি দীর্ঘ রেলপথ তৈরি করবে ভারত যাতে যোগাযোগ আরো উন্নত হয় বানিজ্যিক দিক দিয়ে।
  • এর ফলে হাজিগাকে লোহা আকরিকের মাইনিং অপারেশনে ভারত ভবিষ্যতে প্রায় ১০ বিলিয়ন ডলারের ব্যবসা করতে পারবে। সম্প্রতি ভারত দুদেশের মধ্যে বাণিজ্য ও সম্পর্ক আরো বাড়াতে কাবুলের সঙ্গে air corridor তৈরি করেছে।
  • চাবাহার – জরঞ্জ – দেলারাম – হাজিগাক রেলওয়ে তৈরি হয়ে গেলে অপরদিকে এর ফলে কাবুলের পাকিস্তানের উপর নির্ভশীলতা কমবে।

পাকিস্তান – অন্যতম প্রধান বাধা-

  • ভৌগোলিক দিক দিয়ে পাকিস্তান, ভারত ও আফগানিস্থান এই দুই দেশের মধ্যে বাণিজ্যিক যোগাযোগ এ প্রধান বাধা।
  • পাক অধিকৃত কাশ্মীর এর কারনে ভারতের উত্তর প্রান্ত দিয়ে আফগানিস্থান ও অন্যান্য দেশ গুলির সঙ্গে ভারত বাণিজ্যে যোগাযোগে সক্ষম নয়।
  • তাই চাবাহার বন্দর সম্পুর্ন রূপে কার্যকর হলে এটি আফগানিস্থান ও মধ্য এশিয়াতে ভারতীয় দ্রব্য রপ্তানিতে এবং অন্যান্য ব্যবসা বাণিজ্য সংক্রান্ত কার্যকলাপ এ বিশেষ সাহায্য করবে।
  • তাছাড়া ভারতের সামুদ্রিক বাণিজ্য এবং সুরক্ষার ক্ষেত্রে খুব গুরুত্ব পূর্ণ ভূমিকা পালন করবে এই বন্দর।

বর্তমান যোগাযোগ ব্যবস্থা এবং তার উপর এই বন্দর এর প্রভাব –

  • চাবাহার বন্দর ভারতের কাছে কার্যকর হওয়ায় ইরান এর চাবাহার বন্দর থেকে ইরানের বর্তমান স্থলযোগাযোগ ব্যবস্থা আফগানিস্থান এর জরঞ্জ (Zaranj) পর্যন্ত যোগসূত্র তৈরি করবে।
  • এই চাবাহার বন্দর NORTH-SOUTH TRANSPORT CORRIDOR এ ভারত ও রাশিয়ার মধ্যে বাণিজ্যিক যোগাযোগ উন্নত করবে।
  • ভারত ইরান থেকে তেল আমদানি করা দেশ গুলির মধ্যে দ্বিতীয় বৃহত্তম দেশ। ইরান তাই ভারতকে বিভিন্ন ভাবে সহযোগিতা করে থাকে
  • অপরদিকে এই বন্দর এর জন্যে ভারতের তেল আমদানি খরচ ও অনেক কমে যাবে।
  • এই বন্দর আগামী ১০ বছর মধ্য ও এশিয়া এবং সংলগ্ন দেশগুলিতে ভারতের বাণিজ্যিক যোগাযোগ এ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।

ভারত ও আফগানিস্তান – বাণিজ্যিক সম্পর্ক – 

  • আফগানিস্তান ২০১৮ সালে প্রায় ৭৪০ বিলিয়ন ডলারের দ্রব্য ভারতে রপ্তানি করেছে যা আফগনিস্তানের সর্বাধিক।
  • উল্লেখ্য সাম্প্রতিক ২০০ শতাংশ ট্যারিফ লাগানোর আগে ভারতে পাকিস্তানের রপ্তানি ছিল ৪৯০ মিলিয়ন ডলার।
  • আফগানিস্তানের অ্যাম্বাসেডার সম্প্রতি মন্তব্য করেছেন দুদেশের মধ্যে বাণিজ্য ২০২০ সালের মধ্যে ২ বিলিয়ন ডলার ছাড়াবে।
  • রপ্তানির দিক দিয়ে ভারত ইতিমধ্যে ২০১৭ সালে আফগানিস্তানে ১.১ মিলিয়ন গম রপ্তানি করেছে

অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ তথ্য –

  • আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্র নানা সময়ে ভারতের এই উদ্যোগ ও তেল আমদানিতে এ বাধা প্রদান করলেও ভারত তা উপেক্ষা করেই এগিয়ে গেছে।
  • যদিও সম্প্রতি, ইরান থেকে তেল আমদানি ও চাবাহার বন্দর নিয়ে ভারত কে ছাড় দিয়েছে আমেরিকা।

Gwadar বন্দর –

  • চীন ভারতের এই চাবাহার বন্দর এর কাজ এ সন্তুষ্ট নয়। তাই তারা মধ্য এশিয়া তে বাণিজ্যিক যোগাযোগ নিজেদের আয়ত্বে আনতে পাকিস্তান এ Gwadar বন্দর তৈরি করছে।
  • এই বন্দর ইরানের চাবাহার বন্দর থেকেমাত্র ৭২ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত।

তাই কূটনৈতিক এবং বাণিজ্যিক দিক দিয়ে, ভারতের সামগ্রিক নিরাপত্তা বৃদ্ধি তে, প্রতিবেশী দেশ গুলির সঙ্গে সুসম্পর্ক তৈরি করতে চাবাহার বন্দর ভারতের কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

 

এরকম আরো উপযোগী পোস্ট পড়তে নিচের লিঙ্ক গুলি follow করুন আর তার পর দিন অনুযায়ী অনলাইন টেস্ট দিয়ে নিজের পরীক্ষা প্রস্তুতি আরো বাড়িয়ে তুলুন।

[pt_view id=”1fdcb52zh7″]

অনলাইন টেস্ট এর লিঙ্ক গুলো পেতে নিচে ক্লিক করুন।

[pt_view id=”ad9be6cr0o”]

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

3 + 18 =

error:
Scroll to Top